সূরা ইখলাস এর বাংলা অর্থ ? সূরা ইখলাসের ফজিলত

সূরা ইখলাস এর বাংলা অর্থ ? সূরা ইখলাসের ফজিলত

সূরা আল ইখলাস কোরআন শরীফের ১১২ নং সূরা এই সূরার আয়াত সংখ্যা হল ৮টি এই সূরা নাযিল হয় মক্কায়। কোরআন শরীফেরএই ছোট সূরা এটি পড়ে আমরা অনেক নেয়ামত ও ফজিলত পাই কিন্তু আমরা অনেকেই জানিনা আজকে আমি সূরা ইখলাস এর বাংলা উচ্চারণ ও অর্থসহ ফজিলত বলার চেষ্টাাা করব।

সূরা ইখলাস এর বাংলা অর্থ

সূরা ইখলাসের ফজিলত

১ রাসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেন কোন ব্যক্তি যদি বিসমিল্লাহ শহীদ সূরা ইখলাস তিন বার পাঠ করে তার আমলনামায় এক খতম কোরআন শরীফ পড়ার সোয়াপ পায়।

২ রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাই সাল্লাম বলেছেন সূরা ইখলাস কোরআন শরীফের এক ভাগ আর সূরা কাফরুল কোরআন শরীফের চার ভাগের এক ভাগ অর্থাৎ সূরা এখলাছ তিনবার পাঠ করলে কোরআন শরীফ এক খতম পড়ার সওয়াব পাওয়া যায় আর সূরা কাফিরুন চার বার পড়লে কোরআন শরীফ এক খতম পড়ার সওয়াব পাওয়াা যায়।

৩ যে ব্যক্তি সূরা ইখলাস অধিক পাঠ কর আল্লাহ তায়ালা তার জন্য জান্নাত ওয়াজিব করে দেয়।

৪ হযরত আয়েশা রাদিয়াল্লাহু আনহা হতে বর্ণিত আছে যে, রাসূল সল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম একটি লোকের নেতৃত্বে একদল সেনাবাহিনী প্রেরণ করেন। তারা ফিরে এসে রাসূল করীম সল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামকে বললেন : হে আল্লাহর রাসুল সল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম! যাকে আপনি আমাদের নেতা মনোনিত করেছেন তিনি প্রত্যক নামাজে কিরাআতের শেষে সুরা ইখলাস পাঠ করতেন, রাসূল কারীম সল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম তাদেরকে বললেন, সে কেন এরুপ করত তোমরা তাকে জিজ্ঞেস করতো? তাকে জিজ্ঞেস করা হলে উত্তরে তিনি বললেন, এ সূরায় আল্লাহর রাহমানুর রাহীমের গুণাবলী বর্ণণা করা হয়েছে, এ কারণে এ সুরা পড়তে আমি খুব ভালবাসি। এ কথা শুনে রাসুল বললেন : তাকে জানিয়ে দাও যে,আল্লাহও তাকে ভালবাসেন। (সহীহ বুখারী।

৫ হযরত আনাস রাদিয়াল্লাহু আনহু হতে বর্নিত, এক ব্যক্তি নিবেদন করল, ‘হে আল্লাহর রাসূল! আমি এই (সূরা) ‘কূল হুওয়াল্লাহু আহাদ’ ভালবাসি। তিনি বললেন, ‘এর ভালবাসা তোমাকে জান্নাতে প্রবেশ করাবে’।

৬ হযরত আবু সাইদ খুদরি রাদিয়াল্লাহু আনহু থেকে বর্ণিত, রাসূল সল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন : সেই সত্তার শপথ! যার হাতে আমার জীবন, সূরা ইখলাস কুরআনের এক তৃতীয়াংশের সমান।”(সহীহ মুসলিম)

ফযীলতের ক্ষেত্রে সূরায়ে এখলাস কুরআনের এক তৃতীয়াংশের সমান। এ কথার অর্থ এই নয় যে, এ সূরা পুরো কুরআনের মোকাবিলায় যথেষ্ট। কারণ, কোন কিছু ফযীলতের দিক দিয়ে অন্য কোন বিষয়ের সমপর্যায়ের হলে এটা জরুরি নয় যে, এর ফলে অন্যটা না হলেও চলবে। সুতরাং কেউ সালাতে সূরা ফাতেহা ছেড়ে সূরা এখলাস তিনবার পড়লে তার সালাত শুদ্ধ হবে না। যেমন হাদিসে এসেছে, হযরত আবু আইউব আনসারি রাদিয়াল্লাহু আনহু থেকে বর্ণিত, রাসূল সল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম নীচের দোয়ার ফযীলতের ব্যাপারে বলেছেন : যে ব্যক্তি এ সাক্ষ্য দেবে যে, আল্লাহ ছাড়া কোন ইলাহ নেই। তিনি একক, তার কোন শরিক নেই, সকল রাজত্ব তার, তার জন্য সকল প্রশংসা। এ দোয়া ১০ বার পড়ল, সে যেন ইসমাইল আলাইহিস সালামের সন্তানদের মধ্য থেকে চারজনকে মুক্ত করল।” এ দোয়ার ফযিলত জানার পর কেউ যদি কাফ্ফারার ৪ জন কৃতদাস মুক্ত করার পরিবর্তে এ যিকির করে, তবে তা গ্রহনযোগ্য হবে না। কারণ, এখানে তাকে গোলাম-ই আজাদ করতে হবে।

৭ যে ব্যক্তি অধিক পরিমাণ পাঠ করবে আল্লাহ্ তায়ালা তাঁর লাশ বহন করার জন্য হযরত জিব্রাঈল আলাইহিস সালাম এর সাথে সত্তর হাজার ফেরেশতা প্রেরণ করবেন। সেই ফেরেশতারা তাঁর লাশ বহন করবে এবং জানাযায় শরিক হবে।

সূরা ইখলাস আরবি উচ্চারণ

قُلْ هُوَ اللَّهُ أَحَدٌ

اللَّهُ الصَّمَد

لَمْ يَلِدْ وَلَمْ يُولَدْوَ

لَمْ يَكُن لَّهُ كُفُوًا أَحَدٌ

সূরা ইখলাস বাংলা উচ্চারণ

ক্বুল হুয়াল্লাহু আহাদ। আল্লাহুসসামাদ। লাম ইয়ালিদ, ওয়ালাম ইউলাদ। ওয়ালাম ইয়াকুল্লাহু কুফুয়ান আহাদ।

সূরা ইখলাস এর বাংলা অর্থ

বলুন, তিনি আল্লাহ, এক, আল্লাহ অমুখাপেক্ষী, তিনি কাউকে জন্ম দেননি এবং কেউ তাকে জন্ম দেয়নি এবং তার সমতুল্য কেউ নেই।

সূরা ইখলাস এর বাংলা অর্থ, সূরা ইখলাস এর আরবি উচ্চারণ, সূরা ইখলাস এর ফজিলত, গুলো আমল করব আমরা সবাই

আরো পড়ুন

Similar Posts

One Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.