রোগ থেকে মুক্তির দোয়া টি জেনে নিন

রোগ থেকে মুক্তির দোয়া

রোগ থেকে মুক্তির দোয়া

মৃত্যু ছাড়া সর্বপ্রকার রোগ থেকে মুক্তির দোয়া

‏ اللَّهُمَّ رَبَّ النَّاسِ أَذْهِبِ الْبَاسَ وَاشْفِ وَأَنْتَ الشَّافِي”

لاَ شِفَاءَ إِلاَّ شِفَاؤُكَ، شِفَاءً لاَ يُغَادِرُ سَقَمًا”متفق عليه

উচ্চারণঃ‘‘আল্লাহুম্মা রাব্বান্নাসি আযহিবিল বা’সা, ওয়াশফি ওয়াআন্তাশ-শাফী, লা শিফাআ ইল্লা শিফাউকা, শিফা’আল-লা য়্যুগাদিরু সাক্বামা’’

অর্থঃ হে আল্লাহ! মানুষের প্রতিপালক! তুমি কষ্ট দূর কর এবং আরোগ্য দান কর। (যেহেতু) তুমিই রোগ নিরাময় কারী। তুমি ছাড়া আর কোনো নিরাময় দানকারী নেই,

তুমি এমনভাবে রোগ নিরাময় দান কর, যেন তা রোগকে নির্মূল করে দেয়। রিয়াদুস সালিহীন ৯০২ | (বুখারী ও মুসলিম)

করোনাভাইরাস থেকে বাঁচার দোয়া

আমাদের মৃত্যু যদি করোনাভাইরাসে লিখা থাকে, তবে তাই হবে। হাদিস অনুসারে, যেসব মুসলিম করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হবে—এতে সে তাকদিরের ফায়সালায় সন্তুষ্ট থাকবে—এমতাবস্থায় যদি তার মৃত্যু হয়, তবে তার মৃত্যু শহিদি মৃত্যু হিসেবে গণ্য হবে। কিন্তু আমরা আমাদের তাকদির সম্পর্কে জানি না, আমাদের জানানো হয়নি। বরং আদেশ দেওয়া হয়েছে, প্রয়োজনীয় প্রস্তুতি গ্রহণ করার। সুতরাং আমরা তাই করব।

আমরা দুই ধরণের প্রস্তুতি নিব—দুনিয়াবি ও ইলাহি। দুনিয়াবি প্রস্তুতি হিসেবে মাস্ক ব্যবহার করব, যেখানে-সেখানে কফ-থুথু ফেলব না, একটু পরপর পানি পান করব, সাবান দিয়ে ঘন ঘন হাত ধৌত করব খুব ভালোভাবে। হাত না ধুয়ে কোনোভাবেই নাক, মুখ ও চোখ স্পর্শ করব না। কারণ এই তিনটি স্থান দিয়ে ভাইরাসটি শরীরে প্রবেশ করে। পাবলিক জমায়েত এড়িয়ে চলব, মানুষকে সচেতন করব, সন্দেহ হলে হসপিটালে যাব

আমরা দুই ধরণের প্রস্তুতি নিব—দুনিয়াবি ও ইলাহি। দুনিয়াবি প্রস্তুতি হিসেবে মাস্ক ব্যবহার করব, যেখানে-সেখানে কফ-থুথু ফেলব না, একটু পরপর পানি পান করব, সাবান দিয়ে ঘন ঘন হাত ধৌত করব খুব ভালোভাবে। হাত না ধুয়ে কোনোভাবেই নাক, মুখ ও চোখ স্পর্শ করব না। কারণ এই তিনটি স্থান দিয়ে ভাইরাসটি শরীরে প্রবেশ করে। পাবলিক জমায়েত এড়িয়ে চলব, মানুষকে সচেতন করব, সন্দেহ হলে হসপিটালে যাব

আনাস (রা.) থেকে বর্ণিত। নবী করীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম এরূপ দোয়া করতেন—

اَللَّھُمَّ اِنِّیْ اَعُوْذُبِکَ مِنَ الْبَرَصِ وَالْجُنُوْنِ وَالْجُذَامِ وَسَيِّءِ الْاَسْقَامِ

উচ্চারণ: আল্লাহুম্মা ইন্নি আ’উযুবিকা মিনাল বারাসি, ওয়াল জুনু~নি, ওয়াল জুযা~মি, ওয়া সায়্যিইল আসক্বাম। [আবু দাউদ: ২/৯৩, সহিহ তিরমিযি: ৩/১৮৪, সহিহ নাসাঈ: ৩/১১১৬]

অর্থ: হে আল্লাহ! অবশ্যই আমি তোমার নিকট ধবলরোগ, উন্মাদনা, কুষ্ঠরোগ এবং সকল প্রকার জটিল রোগ-ব্যাধি থেকে আশ্রয় প্রার্থনা করছি।

“তাসবিহ্” পেজ থেকে সংগৃহীত”

রোগী দেখতে যাওয়ার ফযীলত

রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন, “যখন কোনো লোক তার মুসলিম ভাইকে দেখতে যায়, তখন সে না বসা পর্যন্ত যেন জান্নাতে ফল আহরণে বিচরণ করতে থাকে। অতঃপর যখন সে (রোগীর পাশে) বসে, (আল্লাহ্‌র) রহমত তাকে ঢেকে ফেলে। সময়টা যদি সকাল বেলা হয় তবে সত্তর হাজার ফেরেশতা তার জন্য ক্ষমা ও কল্যাণের দো‘আ করতে থাকে বিকাল হওয়া পর্যন্ত। আর যতি সময়টা বিকাল বেলা হয় তবে সত্তর হাজার ফেরেশতা তার জন্য রহমতের দো‘আ করতে থাকে সকাল হওয়া পর্যন্ত।”[193]

জীবনের আশা ছেড়ে দেওয়া রোগীর দোয়া

«اللَّهُمَّ اغْفِرْ لِي، وَارْحَمْنِي، وَأَلْحِقْنِي بِالرَّفِيقِ الْأَعْلَى»

উচ্চারণঃআল্লা-হুম্মাগফিরলী ওয়ারহামনী ওয়া আলহিক্বনী বির রফীক্বিল আ‘লা

অর্থঃ“হে আল্লাহ! আমাকে ক্ষমা করুন, আমার প্রতি দয়া করুন এবং আমাকে সর্বোচ্চ বন্ধুর সঙ্গ পাইয়ে দিন।”[194]

“রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম মৃত্যুর সময় তাঁর দু’হাত পানিতে প্রবেশ করিয়ে তা দিয়ে তাঁর চেহারা মুছছিলেন এবং বলছিলেন,

« لاَ إِلَهَ إِلاَّ اللَّهُ إِنَّ لِلْمَوْتِ سَكَرَاتٍ».

উচ্চারণঃ লা ইলা-হা ইল্লাল্লা-হ, ইন্না লিল মাওতি সাকারা-তিন

অর্থঃ“আল্লাহ ব্যতীত কোনো হক্ব ইলাহ নেই, নিশ্চয় মৃত্যুর রয়েছে বিভিন্ন প্রকার ভয়াবহ কষ্ট।”[195]

«لاَ إِلَهَ إِلاَّ اللَّهُ وَاللَّهُ أَكْبَرُ، لاَ إِلَهَ إِلاَّ اللَّهُ وَحْدَهُ، لاَ إِلَهَ إِلاَّ اللَّهُ وَحْدَهُ لاَ شَرِيكَ لَهُ، لاَ إِلَهَ إِلاَّ اللَّهُ لَهُ المُلْكُ وَلَهُ الْحَمْدُ، لاَ إِلَهَ إِلاَّ اللَّهُ وَلاَ حَوْلَ وَلاَ قُوَّةَ إِلاَّ بِاللَّهِ»

উচ্চারণঃলা ইলা-হা ইল্লাল্লা-হু, আল্লা-হু আকবার, লা ইলা-হা ইল্লাল্লা-হু ওয়াহদাহু, লা ইলা-হা ইল্লাল্লা-হু ওয়াহদাহু লা শারীকা লাহু, লা ইলা-হা ইল্লাল্লা-হু লাহুল মুলকু ওয়ালাহুল হামদু, লা ইলা-হা ইল্লাল্লা-হু ওয়ালা হাউলা ওয়ালা কুওয়াতা ইল্লা বিল্লা-হ

অর্থঃ“আল্লাহ ব্যতীত কোনো হক্ব ইলাহ নেই, আল্লাহ মহান। একমাত্র আল্লাহ ব্যতীত কোনো হক্ব ইলাহ নেই। একমাত্র আল্লাহ ব্যতীত কোনো হক্ব ইলাহ নেই, তাঁর কোনো শরীক নেই। আল্লাহ ব্যতীত কোনো হক্ব ইলাহ নেই, যাবতীয় রাজত্ব তাঁরই, তার জন্যই সকল প্রশংসা, আল্লাহ ব্যতীত কোনো হক্ব ইলাহ নেই, আল্লাহর সাহায্য ছাড়া (পাপ কাজ থেকে দূরে থাকার) কোনো উপায় এবং (সৎকাজ করার) কোনো শক্তি নেই।”[196]

আমরা সবাই রোগ থেকে মুক্তির দোয়া টি আমল করব

আরো পড়ুন

Similar Posts

Leave a Reply

Your email address will not be published.