মনের আশা পূরণের দোয়া ও আমল

মনের আশা পূরণের দোয়া ও আমল

প্রথম আমল

হাদিসে মনের বাসনা পূরনের জন্য বিভিন্ন দোয়ার কথা উল্লেখ আছে। তন্মধ্যে ওল্লেখযোগ্য কিছু হল, আবু সোলায়মান দারানী বলেন, যে ব্যক্তি আল্লাহর কাছে কোন প্রার্থনা করতে চায়, তার উচিত, প্রথম দরূদ পাঠ করা এবং দরূদ দ্বারা দোয়া শেষ করা কেননা, আল্লাহ আবু সোলায়মান উভয় দরূদ কবুল করেন।

রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন : যখন তোমরা আল্লাহর নিকট চাও তখন আমার প্রতি দরূদ পাঠ কর। আল্লাহর শান এরূপ নয় যে, কেউ তার কাছে দুইটি জিনিস চাইলে একটি পূর্ণ করবেন এবং অপরটি করবেন না। সূরা এখলাছ তিনবার পাঠ করে আল্লাহ্’র দরবারে দোয়া করলে আল্লাহ্ নেক আশা পূর্ন করেন। যে ব্যক্তি দৈনিক এশার নামাজ পর এই পাক নামটি ইয়া জাহিরু ১০০বার পাঠ করে তার মনের সকল নেক বাসনা পূর্ণ হয়।

দ্বিতীয় আমল

দোয়া: “সুবহানাল্লাহি ওয়াল-হামদু-লিল্লাহি ওয়া লা-ইলাহা ইল্লাল্লাহু ওয়াল্লাহু আকবার, ওয়ালা-হাওলা ওয়ালাক্কুয়াতা ইল্লা বিল্লাহিল আলীয়িল আযীম, রাব্বানা আতিনা ফিদ্দুনিয়া হাসনাতাও, ওয়াফিল আখেরাতে হাসনাতাও, ওয়াক্কিনা আজাবান্নার।

বিধিঃ নিম্নোক্ত নিয়মে দুই রাকাত নফল নামাজ আদায় করিলে যে কোন আশা পূর্ণ হবে। ইনশাআল্লাহ ইহা বহু পরীক্ষিত ও অত্যন্ত ফলপ্রদ একটি আমল যে কেউ শুদ্ধাচারে বিধিমত এই নামাজ আদায় করলে ১০০% নিশ্চিত তার ফল পাবেই।

নিয়ম: নামাজের প্রথম রাকাতে সূরা ফাতেহার সাথে দশবার সূরা কাফেরুন এবং দ্বিতীয় রাকাতে সুরা ফাতেহার সাথে দশবার সুরা ইখলাস পাঠ করে নামাজ শেষ করিতে হইবে এবং নামাজ শেষে সালাম ফিরাইবার পর পূনরায় একটি সিজদায় গিয়ে যে কোন দরুদ ১০ বার পাঠ করিবে এবং উপরোক্ত দুওয়াটি ১০ বার পাঠ করিবে। ইহাতে আপনি ১,৩,৭ দিনের মধ্যে আপনার মনো কামনা পূর্ন হইবে।

মনের আশা পূরণের দোয়া

পবিত্র রমজান দোয়া কবুলের সর্বোত্তম সময়। এই মাসে প্রতিটি আমলের সওয়াব কয়েকগুণ বৃদ্ধি করে দেয়া হয়। আজ রমজানের ১৭তম রোজা। এই দিনের দোয়া:

اَللّـهُمَّ اهْدِني فيهِ لِصالِحِ الاَْعْمالِ، وَاقْضِ لي فيهِ الْحَوائِجَ وَالاْمالَ، يا مَنْ لا يَحْتاجُ اِلَى التَّفْسيرِ وَالسُّؤالِ، يا عالِماً بِما في صُدُورِ الْعالَمينَ، صَلِّ عَلى مُحَمَّد وَآلِهِ الطّاهِرينَ .

উচ্চারণ : আল্লাহুম্মাহ-দিনি ফিহি লি-সালিহিল আ’মাল; ওয়া আক্বদি লি ফিহিল হাওয়া-ইঝা ওয়াল আ’মাল; ইয়া মান লা ইয়াহতাঝু ইলাত তাফসিরি ওয়াস সাওয়াল; ইয়া আ’লিমান বিমা ফি সুদুরিল আ’লামিন; সাল্লি আলা মুহাম্মাদিন ওয়া আলিহিত ত্বাহিরিন।

অর্থ : হে আল্লাহ! এ দিনে আমাকে সৎকাজের দিকে পরিচালিত কর। হে মহান সত্ত্বা যার কাছে প্রয়োজনের কথা বলার ও ব্যাখ্যা দেয়ার দরকার হয় না। আমার সব প্রয়োজন ও আশা-আকাঙ্খা পূরণ করে দাও। হে তাবত দুনিয়ার রহস্যজ্ঞানী ! হযরত মুহাম্মদ (সঃ) এবং তাঁর পবিত্র বংশধরদের ওপর রহমত বষর্ণ কর।

 মনের আশা পুরণ হবার আমল

ইসলাম ধর্মে বহু আমল রয়েছে যেগুলো নিয়মিত পালন করলে আল্লাহ তার মনের আশা পুরণ করেন।

যেমনঃ ইয়া মুক্বছিতু নামটি রোজ ৭ বার পাঠ করা।

ইয়া ওয়াকীলু ) হে কার্যকারক। এই পাক নাম টি দৈনিক নির্দিষ্ট এক সময়ে ৯৭বার পাঠ করিলে সবধরণের মনেরআশা পূর্ণ হয়।[মাকছুদুল মোমেনীন]  ( যেকোন একটি সময়ে বসে পড়ে নিবেন, হাদীসে সেইরকম সময়ের কথা উল্লেখ করেনি ।

কোন দোয়া পরলে মনের আশা তারাতারি পুরন হবে

( ইয়া ওয়াকীলু ) – হে কার্যকারক।এই পাক নাম টি দৈনিক নির্দিষ্ট। এক সময়ে ৯৭বার পাঠ করিলে। সবধরণের মনেরআশা পূর্ণ হয়।

আল্লাহর ৯৯ নাম সমূহের একটি নাম ইয়া ওয়াক্বীলু এই নাম টি জপতে পারেন। দোয়া কবুল হবে ইনশা-আল্লাহ।

উদ্যেশ্য হাছিলের জন্য তেল মারার মত এই মনোভাব ত্যাগ করে আল্লাহ কে সন্তুষ্ট করার জনন্য একাগ্রচিত্তে এবাদত করুন। আর যেহেতু আল্লাহ তায়ালা তার কাছে চাইলে খুশি হোন তাই আল্লাহর কাছে নিজের সকল প্রয়োজন পেশ করুন। ইনশা-আল্লাহ আল্লাহ তায়ালা আপনার উপর খুশি হয়ে আপনার জন্য যা মঙ্গলজনক তা দিবেন আর অমঙ্গল জনক জিনিস থেকে হেফাজত করবেন

ইয়া জাহিরুএই পাক নামটি রোজ এশার নামাযের বাদে ৫০০ বার পাঠ করিলে আল্লাহ রহমতে মনের বাসনা পূর্ণ হয় নিয়মিত আল্লাহর ইবাদত করুন । এবং নিচের এই দোয়াটি পাঠ করে দুই রাকাত নফল নামায আদায় করবেন ।নামাযের প্রথম রাকাতে সুরা ফাতিহার সাথে ১০ বার কাফেরুন এবং দ্বিতীয় রাকাতে ফাতিহার সাথে ১০ সুরা ইখলাস পড়বেন ।সালাম ফিরানোর পর যে কোন দুরূদ শরীফ পাঠ করে দোয়া করবেন ।

ইনাশা আল্লাহ আপনার মনের আশা পূরণ হবে । দোয়াটিঃ- “সুবহানাল্লাহি ওয়াল-হামদু-লিল্লাহি ওয়া লা-ইলাহা ইল্লাল্লাহু ওয়াল্লাহু আকবার,

ওয়ালা-হাওলা ওয়ালাক্কুয়াতা ইল্লা বিল্লাহিল আলীয়িল আযীম, রাব্বানা আতিনা ফিদ্দুনিয়া হাসনাতাও, ওয়াফিল আখেরাতে হাসনাতাও, ওয়াক্কিনা আজাবান্নার

অবশ্যই পড়ুন

Similar Posts

Leave a Reply

Your email address will not be published.