আয়াতুল কুরসি বাংলা উচ্চারণ? Ayatul Kursi Bangla

আয়াতুল কুরসি বাংলা উচ্চারণ? Ayatul Kursi Bangla

আয়াতুল কুরসি

শয়তানের ওয়াসওয়াছা থেকে বাঁচার আয়াত:হযরত আবু হুরায়রা রা. থেকে বর্ণিত, রাসূল(সা:)বলেছেন, সূরা বাকারায় একটি শ্রেষ্ঠ আয়াত রয়েছে, যে ঘরে আয়াতুল কুরসী পড়া হবে সেখান থেকে শয়তান পালাতে বাধ্য হবে ।

আয়াতুল কুরসি বাংলা উচ্চারণ? Ayatul Kursi Bangla

আয়াতুল কুরসির ফজিলত

আয়াতুল কুরসি কোরআন শরীফের সবচেয়ে বড় আয়াত এই আয়াতটির মাধ্যমে অনেক ফজিলত লাভ করা যায় এমনি ভাবে আল কুরআনে অনেক আয়াত রয়েছে আয়াতগুলোর অনেক ফজিলত সুরা আল বাকারার 255 ণং আয়াত আয়াতুল কুরসির অনেক ফজিলত আমি কয়েকটি ফজিলত বলার চেষ্টা করব। ( Ayatul Kursi Bangla )

আয়াতুল কুরসির ফজিলত

১ প্রিয় নবী হযরত মুহাম্মদ (স:) বলেছেন যে ব্যক্তি পাঁচ অক্ত ফরজ নামাজের পর আয়াতুল কুরসি তেলাওয়াত করে সেই ব্যক্তির মৃত্যুর সময় সহজভাবে তার জার কাবেছ করা হবে।

২ অন্য বর্ণনায় আছে যারা পাঁচ ওয়াক্ত নামাজের পর আয়াতুল কুরসি তেলাওয়াত করে তাদের জান্নাত যেতে কোন বাধাই থাকেনা শুধুমাত্র মৃত্যু ছাড়া অর্থাৎ তারা মৃত্যু গ্রহণ করার পর জান্নাতে চলে যাবে।

৩ আরেকটি বর্ণনায় আছে যে যে ব্যক্তি রাতে ঘুমাইবার সময় আয়াতুল কুরসী পাঠ করে আল্লাহ তায়ালা তার মাথার উপর এমন একটি ফেরেশত নিযুক্ত করে যে সারারাত তাকে পাহারা দেয় এবং দুষ্ট মতিঝিন ও শয়তানের অছয়া থেকে রক্ষা করে।

৪ তাছাড়া রাসূল সাল্লাল্লাহু (স:) বলেছেন যে ব্যক্তি আয়াতুল কুরসি পড়ে তার মাল পানির উপর ফু দেয় তাহলে তার ওই সম্পদ কোন চোর নিতে পারেনা।

৫ যাহারা আয়াতুল কুরসী পাঠ করবে তাহাদের জন্য আল্লাহ তাআলা আটটি জান্নাতের সবগুলো দরজা দিয়ে ডুগি বার সুযোগ করে দিবে।

৬ হযরত আলী রাদিয়াল্লাহু আনহু বলেন রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম কে বলতে শুনেছি যে ব্যক্তি প্রত্যেক ফরয নামাযের পর আয়াতুল কুরসী পারে তার শুধু মাত্র মৃত্যুই বাকি থাকে জান্নাতে প্রবেশ করার জন্য যে ব্যক্তি এই আয়াতটি ঘুমাইবার আগে পড়বে তার ঘর তার প্রতিবেশীর ঘর তার আশেপাশের ঘর শান্তি বজায় হবে।

৭ আবু হুরাইরা (রা) বলেন রাসুলল্লাহ (সা:) বলেছেন সুরা বাকারার মধ্যে এমন একটি আয়াত রয়েছে যে আয়াতটি পুরো কোরআনের নেতা স্বরূপ। তা এই আয়াতটি কোন ব্যক্তি পারে ঘরে ঢুকে শয়তান ওই ঘর থেকে তখনই বেরহয়ে যায়। এই আয়াত টি হল আয়াতুল কুরসি

৮ আবু হুরাইরা রা. থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, এক রমজান মাসে রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহ আলাইহি ওয়া সাল্লাম আমাকে যাকাতের সম্পদ রক্ষা করার দায়িত্ব দিলেন। দেখলাম, কোন এক আগন্তুক এসে খাদ্যের মধ্যে হাত দিয়ে কিছু নিতে যাচ্ছে। আমি তাকে ধরে ফেললাম। আর বললাম, আল্লাহর কসম! আমি অবশ্যই তোমাকে রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহ আলাইহি ওয়া সাল্লাম এর কাছে নিয়ে যাবো। সে বলল, আমি খূব দরিদ্র মানুষ। আমার পরিবার আছে। আমার অভাব মারাত্নক। আবু হুরাইরা বলেন, আমি তাকে ছেড়ে দিলাম। সকাল বেলা যখন রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহ আলাইহি ওয়া সাল্লাম এর কাছে আসলাম, তখন তিনি বললেন, কী আবু হুরাইরা! গত রাতের আসামীর খবর কি? আমি বললাম, হে আল্লাহর রাসূল! সে তার প্রচন্ড অভাবের কথা আমার কাছে বলেছে। আমি তার উপর দয়া করে তাকে ছেড়ে দিয়েছি। রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহ আলাইহি ওয়া সাল্লাম বললেন, অবশ্য সে তোমাকে মিথ্যা বলেছে। দেখবে সে আবার আসবে।

হাদীসে এসেছে –

আমি এ কথায় বুঝে নিলাম সে আবার আসবেই। কারণ রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহ আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন, সে আবার আসবে। আমি অপেক্ষায় থাকলাম। সে পরের রাতে আবার এসে খাবারের মধ্যে হাত দিয়ে খুঁজতে লাগল। আমি তাকে ধরে ফেললাম। আর বললাম, আল্লাহর কসম আমি অবশ্যই তোমাকে রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহ আলাইহি ওয়া সাল্লাম এর কাছে নিয়ে যাবো। সে বলল, আমাকে ছেড়ে দাও। আমি খুব অসহায়। আমার পরিবার আছে। আমি আর আসবো না। আমি এবারও তার উপর দয়া করে তাকে ছেড়ে দিলাম। সকাল বেলা যখন রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহ আলাইহি ওয়া সাল্লাম এর কাছে আসলাম, তিনি বললেন, কী আবু হুরাইরা! গত রাতে তোমার আসামী কী করেছে? আমি বললাম, হে আল্লাহর রাসূল! সে তার চরম অভাবের কথা আমার কাছে বলেছে। তার পরিবার আছে। আমি তার উপর দয়া করে তাকে ছেড়ে দিয়েছি। রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহ আলাইহি ওয়া সাল্লাম বললেন, অবশ্য সে তোমাকে মিথ্যা বলেছে। দেখো, সে আবার আসবে।

তৃতীয় দিন আমি অপেক্ষায় থাকলাম, সে আবার এসে খাবারের মধ্যে হাত ঢুকিয়ে খুঁজতে লাগল। আমি তাকে ধরে ফেললাম। আর বললাম, আল্লাহর কসম আমি অবশ্যই তোমাকে রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহ আলাইহি ওয়া সাল্লাম এর কাছে নিয়ে যাবো। তুমি তিন বারের শেষ বার এসেছ। বলেছ, আসবে না। আবার এসেছ। সে বলল, আমাকে ছেড়ে দাও। আমি তোমাকে কিছু বাক্য শিক্ষা দেবো যা তোমার খুব উপকারে আসবে। আমি বললাম কী সে বাক্যগুলো? সে বলল, যখন তুমি নিদ্রা যাবে তখন আয়াতুল কুরসী পাঠ করবে। তাহলে আল্লাহর পক্ষ থেকে তোমাকে একজন রক্ষক পাহাড়া দেবে আর সকাল পর্যন্ত শয়তান তোমার কাছে আসতে পারবে না।

আমি তাকে ছেড়ে দিলাম। সকাল বেলা যখন রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহ আলাইহি ওয়া সাল্লাম এর কাছে আসলাম, তখন তিনি বললেন, কী আবু হুরাইরা! গত রাতে তোমার আসামী কী করেছে? আমি বললাম, ইয়া রাসূলাল্লাহ! সে আমাকে কিছু উপকারী বাক্য শিক্ষা দিয়েছে, তাই আমি তাকে ছেড়ে দিয়েছি। রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহ আলাইহি ওয়া সাল্লাম জিজ্ঞেস করলেন, তোমাকে সে কী শিক্ষা দিয়েছে? আমি বললাম, সে বলেছে, যখন তুমি নিদ্রা যাবে, তখন আয়াতুল কুরসী পাঠ করবে। তাহলে আল্লাহর পক্ষ থেকে তোমাকে একজন রক্ষক পাহাড়া দেবে আর সকাল পর্যন্ত শয়তান তোমার কাছে আসতে পারবে না।

আর সাহাবায়ে কেরাম এ সকল শিক্ষণীয় বিষয়ে খুব আগ্রহী ছিলেন- রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহ আলাইহি ওয়া সাল্লাম বললেন, সে তোমাকে সত্য বলেছে যদিও সে মিথ্যাবাদী। হে আবু হুরাইরা! গত তিন রাত যার সাথে কথা বলেছো তুমি কি জানো সে কে?

আবু হুরাইরা বলল, না, আমি জানি না। রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহ আলাইহি ওয়া সাল্লাম বললেন, সে হল শয়তান।

আসুনএই ফজিলতপূর্ণ যে আয়াতটি সে আয়াতটির সম্পর্কে আমরা অবহিত হই আয়াতুল কুরসি তে আল্লাহ তাআলার আটটি ছিফাত বর্ণন করা হয়েছে। ছিফাত অর্থ গুন।

আয়াতুল কুরসি বাংলা উচ্চারণ ও আরবি ডচ্চারন

আয়াতুল কুরসি আরবি

بِسٛمِ اللّٰهِ الرَّ حٛمٰنِالرَّ حِیٛمِ

উচ্চারণ বিসমিল্লাহির রহমানির রহম। অর্থ: দয়াময় পরম দয়ালু নামে

اَللهُ لآ إِلهَ إِلاَّ هُوَ الْحَىُّ الْقَيُّوْمُ، لاَ تَأْخُذُهُ سِنَةٌ وَّلاَ نَوْمٌ، لَهُ مَا فِى السَّمَاوَاتِ وَمَا فِى الْأَرْضِ، مَنْ ذَا الَّذِىْ يَشْفَعُ عِنْدَهُ إِلاَّ بِإِذْنِهِ، يَعْلَمُ مَا بَيْنَ أَيْدِيْهِمْ وَمَا خَلْفَهُمْ وَلاَ يُحِيْطُوْنَ بِشَيْئٍ مِّنْ عِلْمِهِ إِلاَّ بِمَا شَآءَ، وَسِعَ كُرْسِيُّهُ السَّمَاوَاتِ وَالْأَرْضَ، وَلاَ يَئُودُهُ حِفْظُهُمَا وَ هُوَ الْعَلِيُّ الْعَظِيْمُ

Ayatul Kursi Bangla – আয়াতুল কুরসি বাংলা উচ্চারণ

আল্লা-হু লা ইলা-হা ইল্লা হুওয়াল হাইয়্যুল ক্বাইয়্যুম। লা তা’খুযুহু সিনাতুঁ ওয়ালা নাঊম। লাহূ মা ফিস্ সামা-ওয়াতি ওয়ামা ফিল আরদ্বি। মান যাল্লাযী ইয়াশফাউ’ ই’ন্দাহূ ইল্লা বিইজনিহি। ইয়া’লামু মা বাইনা আইদিহিম ওয়ামা খালফাহুম, ওয়ালা ইউহিতূনা বিশাইয়্যিম্ মিন ‘ইলমিহি ইল্লা বিমা শা-আ’ ওয়াসিআ’ কুরসিইয়্যুহুস্ সামা-ওয়া-তি ওয়াল আরদ্বি, ওয়ালা ইয়াউ’দুহূ হিফযুহুমা ওয়া হুওয়াল ‘আলিইয়্যুল আ’জিম।

আয়াতুল কুরসির অর্থ

অর্থ: আল্লাহ তিনি ব্যতীত কোন ইলাহ নেই তিনি চিরঞ্জীব, সবসত্তার ধারক। তাঁকে তন্দ্রা অথবা নিদ্রা স্পর্শ করে না। আকাশ ও পৃথিবীতে যা কিছু আছে সমস্ত তাঁরই কে সে, যে তার অনুমতি ব্যতীত তার নিকট সুপারিশ করবে? তাদের সম্মুখে ও পশ্চাতে যা কিছু আছে তা তিনি অবগত । যা তিনি ইচ্ছে করেন তদ্ব্যতীত তার জ্ঞানের কিছুই তার আয়ত্ত করতে পারে না। তার করুসি আকাশ ও পৃথিবীময় পরিব্যপ্ত এসবের রক্ষণাবেক্ষণ তাকে ক্লন্ত করে না ; আর তিনি মহান, শ্রেষ্ঠ

আয়াতুল কুরসির আমল

১. শুক্রবার আসরের নামাযের পর নির্জন স্থানে বসে এই আয়াত ৭ বার পাঠ করলে মনে এক আশ্চর্যভাবের উদয় হয় এ ঔ সময় পাঠকারীর দোয়া কবুল হয়।

২. ক্রমান্নয়ে ৩১৩ বার পড়লে ইনশাল্লাহ্ সকল কাজে জয়লাভ করা যায়।

৩. যে ব্যাক্তি প্রতেক ফরয নামাযের পর ১ বার পড়বে তার রিযিক বৃদ্ধি পাবে।

৪. হযরত রাসূল (স:) এর ইন্তেকালের সময় হযরত আযরাঈল (আ:) বলেছেন, আপনার উম্মতের মধ্যে যে ব্যাক্তি প্রতেক ফরয নামাযের পর ১ বার পড়বে, আমি তার রূহ (আত্মা) অতি সহজে কবয করব।

৫. নাসায়ী শরিফে বর্নিত আছে, নবী (স:) বলেন, যে ব্যাক্তি প্রতেক ফরয নামাযের পর নিয়মিত ১ বার আয়াতুল কুরসী পড়বে তার জন্য বেহেস্তে প্রবেশের পথে মৃত্যু ব্যতিত আর কোন বাধা থাকবে না।

৬. ঘর হতে বাহির হওয়ার সময় এই আয়াত পড়ে বের হলে কারো মুখাপেক্ষী হবে না।

৭. আবু হুরায়রা (র:) বর্ননা করেন, রাসূল (স:) ইরশাদ করেছেন এ আয়াতটি যে ঘরে পাঠ করা হয় সে ঘর থেকে শয়তান পালায়ন করে।

৮. রাতে একাকী পথ চলার সময় এই আয়াত পাঠ করতে থাকলে দেও, জীন, পরী, ভূত, প্রেত ইত্যাদি কাছে আসতে পারেনা।

৯. দৈনিক ৫০ বা ১৭০ বার পড়লে মনের বাসনাপূর্ন হয়।

১০. ৫০ বার পড়ে বৃষ্টির পানির উপর ফুক দিয়ে খেলে জ্ঞান বৃদ্ধি পায়।

১১. ঘর, বাগান ও দোকানের প্রবেশ দরজায় এই দোয়া লিখে ঝুলিয়ে রাখলে রিযিক বৃদ্ধি পায়, চোর-ডাকাত সেখানে প্রবেশ করতে পারেনা ও অগ্নিদাহ হয় না।

আবু জর জুনদুব ইবনে জানাদাহ (রা.) নবী (সা.) জিজ্ঞেস করেছিলেন, হে আল্লাহর রাসূল (সা.)! আপনার প্রতি সবচেয়ে মর্যাদাসম্পন্ন কোন আয়াতটি নাজিল হয়েছে? রাসূল (সা.) বলেছিলেন, আয়াতুল কুরসী। (নাসায়ি)

আল্লাহ তায়ালা আমাদের সবাইকে এই আমল গুলো মেনেচলার এবং আমল গুলো করার তৌফিক দান করুক,, আয়াতুল কুরসি বাংলা উচ্চারণ? Ayatul Kursi Bangla,, আয়াতুল কুরসির ফজিলত ও আয়াতুল কুরসির অর্থ গুলো দেখে দেখে আমল করব ইনশা আল্লাহ

অবশ্যই পড়বেন

Similar Posts

One Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.